আমার পরিচয় নিয়ে ছিনিমিনি খেলা চলবেনা,আসল উসামা মুহাম্মাদ আমি ই।কেউ চাপিয়ে দিলে বা কেউ দাবি করলে হয়ে যায়না।এটার প্রমাণ শুনুন কয়েকটি ঘটনা থেকে :এক.শনিবার হাইয়াতুল উলয়ার মিটিংয়ের দিন সন্ধ্যায় আনাস মদনী ও নূরুল আমীন সাব গং আমার প্রাণের প্রতিষ্ঠান ফরিদাবাদ মাদরাসায় ফিরে এসে আকাবিরদের রাতের ভূরি ভোজন শেষে একেবারে গভীর রাত তথা প্রায় ৩ টা পর্যন্ত দফায় দফায় মিটিং করে মেহমানখানায়।এক্টু পরপর এদিক সেদিক দেখে কেউ উকি মারেনি, মানে উসামার ভয়! দফতরের এক ছাত্র খাদেম অাছে বেচারা খানা -আর পান ঠেলাঠেলির কাম করতো বন্ধের মধ্যে, সে এসব কাজ-কামে মেহমানখানায় এক্টু আধটু প্রয়োজনে গেছে আর কি! পরের দিন সকাল বেলা মানে গতকাল সকালে নূরু সাব ছেলেটাকে ডেকে বলে তোর বাড়ি কইরে? উত্তরে জানালো শরীয়তপুর, সঙ্গে সঙ্গে নূরু সাব উসামা বারুদে জ্বলে উঠলো, নিরীহ বেচারাকে বললো “১০ মিনিটের মধ্যে মাদরাসার সীমানা থেকে বের হয়ে যা, শরীয়তপুরের সবকয়টা উসামার দল” আহ! উসামা বাতাসেও নির্যাতিত!! ও, এই কাহিনী কিন্তু মুহতামিম সাবের সাবেক পিএস বর্তমান বোর্ডিং ম্যানেজার শরীয়তপুরের শোয়াইব এবং বোর্ডিংয়ের গোডাউনের নবনিযুক্ত পাহারাদার মুহসিন সরাসরি দেখছে!এই শরীয়তপুরের উপর ক্ষ্যাপার মূল কারণ নাকি আমার বাড়ি শরীয়তপুর। শরীয়তপুরের উসামা যদি শরীয়ত কায়েমের আন্দোলনে নেমে আসতো কতইনা ভালো হত!দুই. ক’দিন আগে একভাই ফরিদাবাদ গেটে ঢুকলেন তার দিকে চতুর্দিক থেকে এমনভাবে নজরদারী করা হলো যে, সে আমার লোক কিনা! বন্ধের মধ্যে দু’য়েকজন ছাত্র এমনিতেই যায়, বাসায় বোরিং লাগে, মাদরাসা থেকে ঘুরে আসতে। গেলেই জিজ্ঞাসা উসামা মুহাম্মাদ কে চিনো? সেদিন দুই উস্তায পরস্পর বসে বলতেছে হায়রে উসামা সব শেষ করে দিল ফরিদাবাদের!তিন.বেফাকের অফিসে গতকাল নূরুল আমীনরা ঢুকে ডানে বামে দেখে কাউকে আমার লোক বলে সন্দেহ হয় কিনা! কিয়েক্টা ভয়াবহ অবস্থা।আর বেচারা যুবায়ের বিন আ.কুর গতকালের অসহায়ত্বের ছবিটা যদি দিতে পারতাম তাহলে একটু আন্দায করতে পারতেন কতটা উৎকন্ঠিত ছিল! চার.সম্ভবত গত পরশুদিন জনপ্রিয় এক নিউজ পোর্টালের সাংবাদিক পরিচয়ে আমাকে নক দিয়ে বললো আপনার নাম্বারটা দেন উপরের পর্যায় থেকে ভাল সহযোগীতা পাবেন, পরে উপরের ব্যাখ্যা জানলাম সরকার থেকে আরো খাস করে বললে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রনালয় থেকে সহযোগীতা করা হবে, আমি বললাম মন্ত্রনালয় কেন সহযোগীতা করবে? তারপর আমাকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের ধর্ম বিষয়ক পিএস আম্বরশাহ মসজিদের খতিব মাযহার এর নাম্বার দিলো। ফেসবুক আইডির লিংক দিলো। আহ! উসামা কতটা শক্তিশালী সরকারও সহযোগীতা করতে চায়!!